ইমরুলের পোড়া কপাল

বিপিএলে ভালো করা বাংলাদেশ দলের প্রায় সব ওপেনারই সুযোগ পেয়েছেন পাকিস্তান সফরের টি-টোয়েন্টি দলে। এ দলে আছেন তামিম ইকবাল, নাঈম শেখ, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসেন শান্ত, আফিফ হোসেন এবং মোহাম্মদ মিঠুন। টিম ম্যানেজমেন্টকে বাংলাদেশ দলের টপ ও মিডলঅর্ডার সাজাতে হবে ওপেনারদের দিয়েই।

কিন্তু এ ব্যাটসম্যানদের ভিড়ে ইমরুল কায়েস হারালেন কোথায়, বিপিএলটা দুর্দান্ত গেছে যাঁর। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে ১৩ ম্যাচে যিনি ৪৯.১১ গড়ে করেছেন ৪৪২ রান। ইমরুলকে দলে না রাখার কারণটা আসলে চোট।

আরও-পড়ুনঃ শুরু হচ্ছে ট্রেসেমে বাংলাদেশ ফ্যাশন উইক ২০২০, স্পনসর নিউ ইয়র্ক ট্রেসেমে

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন বললেন, ‘আমরা ইমরুলকে নিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ওর হ্যামস্ট্রিং চোট। বিকল্প হিসেবে তাই শান্তকে (নাজমুল হোসেন) নিয়েছি।’

আজ সন্ধ্যায় ইমরুলের সঙ্গে যখন কথা হচ্ছিল তখন তিনি হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরছেন। বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান নিজেই জানালেন, চোট থেকে সেরে উঠতে অন্তত দুই সপ্তাহ লাগবে, ‘মাত্র স্ক্যান করে এলাম। চিকিৎসকেরা বলছেন গ্রেড ওয়ানের চোট। দুই সপ্তাহের বিশ্রামে থাকতে হবে। এরপর অনুশীলন হয়তো শুরু করতে পারব। দুর্ভাগ্য ছাড়া আর কী বলব!’

দলে এত বাঁহাতি ব্যাটসম্যান, যাঁদের বেশির ভাগই ওপেনার হিসেবেই পরিচিত। কিন্তু সবাই তো আর ওপেন করবেন না। নির্বাচক হাবিবুল বাশার বললেন, ‘তামিমের সঙ্গে নাঈম শেখ কিংবা লিটনের একজন থাকতে পারে।

টি-টোয়েন্টিতে এ তিনজনকে নিখাদ ওপেনার হিসেবে বিবেচনা করছি। এখন তামিমের সঙ্গে লিটন না নাঈম সেটি টিম ম্যানেজমেন্ট ডান হাতি-বাঁহাতি চিন্তা করে ঠিক করবে। বাকিরা মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করবে।’

আরও পড়ুনঃ প্রথম আলো সম্পাদকের নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের উদ্বেগ

বিপিএলে নিয়মিত মিডল অর্ডারে খেলা সৌম্য সরকারকে পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে বিবেচনা করছেন নির্বাচকেরা। অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে বঙ্গবন্ধু বিপিএলে মেহেদী হাসান দারুণ করলেও প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল বললেন, তাঁর এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডারের কাছে বোলিং সেবাটাই বেশি আশা করছেন।

সুত্র

Facebook Comments