পশ্চিম বাংলার রেশন

কেন্দ্র মুসুর ডাল পাঠাচ্ছে না। ফলে রেশনে মুসুর ডাল দেওয়া যাচ্ছে না। অন্য রাজ্যকে পরিমাণমতো পাঠানো হলেও, পশ্চিমবঙ্গে নামমাত্র মুসুর ডাল পাঠিয়েছে কেন্দ্র। মুসুর ডাল বণ্টনের ক্ষেত্রে বৈষম্য করছে কেন্দ্র। এমন অভিযোগে ক্ষোভ জানালেন পশ্চিম বাংলার রেশন ডিলাররা।

প্রসঙ্গত, লকডাউনের শুরুতে ভারতের বিজেপি সরকার ঘোষণা করে রাষ্ট্র খাদ্য সুরক্ষা আইন অনুযায়ী এপ্রিল মাস থেকেই সব রেশন-দোকানে বিনামূল্যে মুসুর ডাল মিলবে। কার্ড পিছু প্রত্যেককে ১ কেজি করে মুসুর ডাল দেওয়ার কথা ঘোষণা করে ভারতের বিজেপি সরকার। সেক্ষেত্রে রাজ্যের প্রয়োজন ১৪,৫৩০মেট্রিক টন ডাল। অভিযোগ, সেখানে রাজ্য পেয়েছে মাত্র ১৮০০ মেট্রিক টন মুসুর ডাল। ফলে কেন্দ্রের ডাল রেশনে মিলছে না। 

অল ইন্ডিয়া ফেয়ার প্রাইস শপ ডিলার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বম্ভর বসু বলেন, “সাধারণ মানুষ আমাদের প্রশ্ন করছেন। সবাইকে জানাতে হচ্ছে কোনওভাবেই রাজ্যে রেশনে মুসুর ডাল দেওয়া যাচ্ছে না।” তাঁর অভিযোগ, “মুসুর ডাল অন্য রাজ্যে যথেষ্ট পাঠানো হয়েছে। বাংলার ক্ষেত্রেই বণ্টনে সমস্যা করা হচ্ছে। মুসুর ডালকে প্রোটিনের অন্যতম উৎস মানা হয়। ফলে রেশনে মুসুর ডাল না পেলে অগণিত মানুষ প্রোটিনের সমস্যায় পড়বেন।”

চারদিকে জনসাধারনের আর্থিক দিক বিবেচনা করে , জনসাধারন যেনো তাদের মোটামুটি ভাবে প্রোটিনের চাহিদা পুরন করতে পারে সে জন্যে ভারতের বিজেপি সরকার ঘোষণা করে এপ্রিল মাস থেকেই সব রেশন-দোকানে বিনামূল্যে মুসুর ডাল পোছে যাবে যাতে জনসাধারন তাদের প্রোটিনের চাহিদা পুরন করতে পারে।

এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে নিশানা করে তোপ দেগেছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকও। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, “প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি পূরণে ব‍্যর্থ। এইসময় মুখ‍্যমন্ত্রীর পাশে দাঁড়ানো উচিত ছিল। তা না করে বিজেপি-বাম রাজনীতি করছে। নোংরা রাজনীতি করছে।” অভিযোগ করেন, “রাজ‍্যের মুসুর ডালের মাসিক চাহিদা ১৪,৪৫০ মেট্রিক টন। সেখানে ন‍্যাফেড এনেছে ৪,২২৯ মেট্রিক টন।”

আরো-পড়ুনঃ 

রাজধানীর এক হোটেলে হিন্দু যুবককে চিকেন খিচুরি বলে খাওয়ানো হলো গরুর মাংস

পরক্রিয়া রোগে আক্রান্ত মায়ের হাতে খুন হয়েছে দুধের এক শিশু

বাঁশ দিয়ে সোজা করতেই চমকে উঠেলেন সবাই, শিশুকন্যাকে কোলে নিয়েই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট মা!

Facebook Comments