Gastro Coronavirus

বার বার উপসর্গ বদলে ভয়ঙ্কর হচ্ছে করোনাভাইরাস। শুরুটা হয়েছিল, জ্বর, সর্দি-কাশি, গলা ব্যথার মতো উপসর্গ দিয়ে। ফলে আবহাওয়ার পরিবর্তনের ফলে হওয়া সাধারণ জ্বর, সর্দি-কাশির সঙ্গে এর তফাৎ বুঝে ওঠা বেশ মুশকিল হচ্ছিল চিকিত্সক থেকে সাধারণ মানুষের পক্ষে।

এর পর যখন জ্বর, সর্দি-কাশি, গলা ব্যথাকে করোনার প্রথমিক লক্ষণ বলে চিহ্নিত করলেন বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা, তখন হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ নিয়ে হাজির হল এই ভাইরাস। Covid-19-এর এই ভোল বদলে প্রথমটায় কিছু বুঝতে পারছিলেন না চিকিত্সকরাও। ফলে একাধিক পরীক্ষার পর যতক্ষণে তাঁরা বুঝতে পেরেছেন যে রোগীর হার্ট অ্যাটাক নয়, হৃদযন্ত্রের পেশীতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে, ততক্ষণে হয়তো অনেকের শরীরে সংক্রমিত হয়ে গিয়েছে এই ভাইরাস।

ইনফ্লুয়েঞ্জা আর হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গের পর এবার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার ছদ্মবেশে হাজির করোনাভাইরাস! একেই বিশেষজ্ঞরা ‘গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাস’ বলে ব্যাখ্যা করছেন। আসুন গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাসের উপসর্গগুলি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক…

গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাস শুনে অনেকেই আন্দাজ করে নিয়েছেন এর সঙ্গে পেটের সমস্যা জড়িয়ে রয়েছে। থেকে থেকেই পেটে ব্যথা, পেট কামড়ানো বা মোচড় দেওয়া বা ডায়েরিয়ার মতো সমস্যা এই গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাসের অন্যতম উপসর্গ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নোরোভাইরাসের সংক্রমণের ক্ষেত্রেও এই ধরনের উপসর্গ দেখা দিতে পারে! তাহলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার কারণ যে করোনাভাইরাস, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায় কী করে?

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, যদি কোনও ব্যক্তির পেটে ব্যথা হয় বা তিনি ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হন তবে, এটি গ্যাস্ট্রো করোনাভাইরাসের (Gastro Coronavirus) প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে। পেটে ব্যথা, পেট কামড়ানো বা মোচড় দেওয়া, পেট শক্ত হয়ে থাকা সঙ্গে জ্বর— এগুলিই হল গ্যাস্ট্রো করোনাভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষণ। তবে পরে ক্রমশ পেট খারাপের সঙ্গে সঙ্গে জ্বর, কাশির মতো সমস্যাও বাড়তে থাকে।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, দু’-তিন দিন ধরে পেটে ব্যথা, পেট খারাপের সঙ্গে সঙ্গে জ্বর, কাশির মতো সমস্যাও যদি থাকে, তাহলে দেরি না করে তিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। গ্যাস্ট্রো-ভাইরাসকে এর উপসর্গগুলর জন্য অনেকে নোরোভাইরাসও বলা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২৫, আক্রান্ত ২০ হাজার

করোনা কে ‘রাজ্যের বিপর্যয়’ বলে ঘোষণা কেরলের, মোকাবিলায় ৪০ হাজার সরকারি কর্মী

করোনাভাইরাস: আমাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ও প্রয়োজনীয় কিছু উদ্যোগ


সুত্র

Facebook Comments