tr

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করতে পারলে হত্যাকারীকে ৩০ লাখ ডলার পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ইরানের এক সংসদ সদস্য। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে।

ইরানের পার্লামেন্টভিত্তিক সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, কেরমান প্রদেশের কাহনুজ শহরের সংসদ সদস্য আহমদ হামজা মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) পার্লামেন্টে নিজের ভাষণে এ ঘোষণা দিয়েছেন।

এ সময় তিনি বলেন, ‘কেরমান প্রদেশের নাগরিকদের একজন হয়ে আমি ঘোষণা দিচ্ছি, ট্রাম্পকে যে-ই হত্যা করুক না কেন, তাকে ৩০ লাখ ডলার পুরস্কার দেয়া হবে। এ প্রদেশের সবাই কাসেম সোলাইমানির যোদ্ধা। আমরা শহীদ হতে ভয় পাই না।’

আর-পড়ুনঃ ইরানের হামলায় কিস্যু হয়নি, সামান্য একটু ক্ষতি হয়েছে: ট্রাম্প

এছাড়া মার্কিন সেনাদের হুমকি দিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘শহীদ কাসেম সোলাইমানি জীবিত সোলাইমানির চেয়েও ভয়ংকর। আপনারা এখন এ বাস্তবতার স্বাদ পাবেন।’

সংসদ অধিবেশনে তিনি আরো বলেন, আমরা পারমাণবিক অস্ত্র ক্ষমতাধর হলে যুক্তরাষ্ট্র তাদের রক্তচক্ষু দেখানোর সাহস পেত না।

তাই আমাদের এখন উচিত বেশি বেশি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের উৎপাদন করা। এ অস্ত্র উৎপাদনে আমাদের কোনো বিধিনিষেধ মানতে হবে না। এটি আমাদের স্বাভাবিক অধিকার।

রয়টার্স জানিয়েছে, আহমদ হামজাহ ইরানের রাজধানী তেহেরানের দক্ষিণে অবস্থিত কারমান প্রদেশের সংসদ সদস্য। আর মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত ইরানি জেনারেল কুদসপ্রধান কাসেম সোলাইমানির জন্মস্থান কারমান প্রদেশেই। যে কারণে ইরানের অন্য সব প্রদেশের চাইতে কারমানের জনগণ সোলাইমানি হত্যায় বেশি ক্ষুব্ধ ও আবেগপ্রবণ।

আর-পড়ুনঃ আমেরিকার দম্ভে আঘাত করেছে ইরান: আয়াতুল্লাহ খামেনেই

তাই নিজ এলাকাবাসীর সেই আবেগের বিষয়টি বিবেচনা করে আহমদ হামজাহ এমন ঘোষণা দিয়েছেন বলে মত দিয়েছেন বিশ্লেষকরা। কারণ তার এই ঘোষণার সঙ্গে সরকারের কোনো যোগসূত্র আছে কী না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত আহমদ হামজেহের আগেও ট্রাম্পের মাথার মূল্য নির্ধারণ করেছিলেন এক ইরানি নাগরিক। সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধে ট্রাম্পের মাথার বিনিময়ে ৮ কোটি ডলার পুরস্কার দেয়া হবে বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

Facebook Comments