কিম জং উন kim jong un

বিশ্বজুড়ে ছড়ানো সব ধরনের ‘জল্পনা-কল্পনা’ আর ‘গুঞ্জন’কে উড়িয়ে দিয়ে শনিবার ২০ দিন পর প্রকাশ্যে এসেছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বাধিনায়ক কিম জং উন। তাকে ঘিরে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রায় ২০ দিনের ‘ঘোর’ ভেঙে কিম একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন।

দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে, ১১ এপ্রিলের পর প্রথমবারের মতো জনসম্মুখে এসেছেন তিনি। কেসিএনএ নিউজ এজেন্সি বলছে, মে দিবসে একটি সার কারখানার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ফিতা কেটেছেন কিম জং উন। এসময় তার বোন কিম ইয়ো জংসহ দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন বলেও প্রতিবেদনে দাবি করা হয়।

কেসিএনএ এর বরাতে প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও তথ্যটি এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে নিজেদের এক প্রতিবেদনে জানায় বিবিসি। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম থেকে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলেও সেখানে কোন ছবি বা ভিডিও না থাকায় সন্দেহ রয়েছে এখনও।

গত ১৫ এপ্রিল থেকে কিমের অসুস্থতার গুঞ্জন শুরু হয়। সেদিন তার দাদা উত্তর কোরিয়ার জাতির জনকের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত ছিলেন কিম। এর আগে, কিম জং উন কখনো এ অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত ছিলেন না। এতেই জোরালো হয়ে পড়ে তার অসুস্থতার গুঞ্জন।

সম্প্রতি সিএনএনের এক প্রতিবেদনে একজন মার্কিন কর্মকর্তার বরাতে জানানো হয়, অস্ত্রোপচারের পর মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন কিম। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দারা এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে।

গত সপ্তাহে কিম বিরোধী পক্ষ দ্বারা পরিচালিত একটি ওয়েবসাইটে কিমের অসুস্থতা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। নাম প্রকাশ না করে একটি সূত্র ডেইলি এনকে’কে জানায়, গত আগস্ট মাস থেকে কার্ডিওভাসকুলার সমস্যার সঙ্গে লড়াই করে যাচ্ছেন কিম। এরপর বিভিন্ন মার্কিন গণমাধ্যমে চাঞ্চল্যকর শিরোনাম হয়, উত্তর কোরিয়ার নেতা হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচারের পরে গুরুতর অসুুস্থ। এরপর তার মৃত্যুর গুজবও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কেসিএনএর তথ্য অনুযায়ী, কিম জং উন ১১ এপ্রিল একটি সরকারি সভায় যোগ দেন। এরপর এই প্রথম প্রকাশ্যে দেখা গেলো

আরও পড়ুন:

অ্যালকোহল পান করলে করোনা থেকে মুক্তি! ভ্রান্ত ধারণায় বিশ্বাস করে মৃত ৭০০

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২৫, আক্রান্ত ২০ হাজার

করোনা কে ‘রাজ্যের বিপর্যয়’ বলে ঘোষণা কেরলের, মোকাবিলায় ৪০ হাজার সরকারি কর্মী

করোনাভাইরাস: আমাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ও প্রয়োজনীয় কিছু উদ্যোগ

Facebook Comments