বিদ্যুৎ চন্দ্র মন্ডল ও রাজবাড়ী জেলা পুলিশ

বিদ্যুৎ চন্দ্র মন্ডল ঢাকায় কর অফিসে চাকুরী করেন। বিয়ে করতে গ্রামের বাড়ী গোয়ালন্দে এসেছেন। গতকাল তার বউ ভাত অনুষ্ঠান ছিল। নতুন বিয়ে, মন মেজাজ ফুরফুরে । আজ ২০ জানুয়ারী দুপুর ১২ টা নাগাদ মোটর সাইকেলে গোয়ালন্দ থেকে রাজবাড়ী শহরে আসছিলেন নতুন বউয়ের জন্য কিছু কেনাকাটা করতে।

মোটর সাইকেল শহরে ঢুকে পান্না চত্তর পার হওয়ার সময় তার অজান্তেই জিন্সের প্যান্টের পিছনের পকেট থেকে মানি ব্যাগটি মাটিতে পড়ে যায়। মানি ব্যাগটি মাটিতে পড়ে থাকে।

বিদ্যুৎ মন্ডল মোটর সাইকেলে চলে যায় রাজবাড়ী বাজারে। মানি ব্যাগটি পেয়ে কয়েক রিক্সাওয়ালা মানি ব্যাগে রক্ষিত ৯৩০০/- নয় হাজার তিন শ’ টাকা ভাগাভাগি করতে বসে। কিন্তু বিধিবাম। রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সম্প্রতি সারা শহরে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেছে।

আরো-পড়ুনঃ শাহজাদপুর পুলিশের বিরুদ্ধে এক গরু ব্যবসায়ীর টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে

সিসি ক্যামেরা কন্ট্রোল রুমে ওসি, ডিবি ইন্সপেক্টর ওমর শরীফ সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষন করছিলেন। তিনি সিসি ক্যামেরায় দেখলেন মোটর সাইকেলে থেকে পতিত মানি ব্যাগ থেকে কিছু লোক টাকা নিয়ে ভাগাভাগি করছে!

তিনি দ্রুত মোটর সাইকেলে পৌছে যান ঘটনাস্থলে। গিয়ে মানি ব্যাগ জব্দ করেন। মানিব্যাগে রক্ষিত একটি দোকানের বিক্রয় রশিদে মালিকের মোবাইল নাম্বারে ফোন দিয়ে এসপি অফিসে ডেকে নিয়ে আসেন।

হারিয়ে যাওয়া টাকা ও কাগজপত্র
উদ্ধারকৃত টাকা ও কাগজপত্র

বিদ্যুৎ মন্ডলের আত্মায় পানি আসে। ইস্… মানিব্যাগে রক্ষিত এনআইডি স্মার্ট কার্ড, অফিসের আইডি কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স, নগদ ৯৩০০/- টাকা, অনেকগুলো জরুরী ভিজিটিং কার্ড ইত্যাদি না ফিরে না পেলে তার কি ভোগান্তি হতো..?

আরো-পড়ুনঃ মেয়েদের ভ্রমণের ইচ্ছা জাগিয়ে তুলতে চাই, ওয়ান্ডার উইমেনের প্রতিষ্ঠাতা সাবিরা মেহেরিন

ডিজিটাল বাংলাদেশের পুলিশের ডিজিটাল সিষ্টেমের কারনে তিনি মানিব্যাগে রক্ষিত টাকা এবং অতি জরুরী ডক্যুমেন্টগুলো ফিরে পেলেন।

রাজবাড়ীবাসী ডিজিটাল সিষ্টেমের সেবা হাতে নাতে পেতে শুরু করেছেন। আসুন আমরা সবাই পুলিশকে সহায়তা করি এবং নিরাপদ সমাজ গড়ি।

সুশমিতা সাহা

Facebook Comments