বিক্রম-মিথিলা

মানুষের জীবনের সঙ্গে কোয়ারেন্টাইন, লকডাউন এই শব্দগুলো এতটা পরিচিত আগে কখনও ছিল না। সকাল বেলা ঘুম থেকে ওঠা এবং রাতে ঘুমোতে যাওয়ার মাঝের সময়টুকু ঠিক কেমন ভাবে কাটতো তাও প্রায় ভুলতে বসেছে মানুষ।

বরং এখনকার জীবনযাপনের গতিপ্রকৃতিকেই টেনে নিয়ে যাওয়ার অভ্যেস করতে হচ্ছে। কে জানে হয়তো লকডাউন উঠে যাওয়ার পরেও সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক, আইসোলেশন এগুলিই মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সবচেয়ে মৌলিক প্রয়োজন হয়ে উঠবে।

আরও পড়ুন:  রাশিয়ায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ পেরিয়ে গেলো।

কিন্তু কিছু জিনিস থাকে, যা হাজার আলোকবর্ষ দূরে থাকলেও স্পর্শ করে দেখা যায়। যুগের পর যুগ যোগাযোগহীনতার পরে হঠাৎ কথাতেও সেই পুরনো আরাম ফিরে পাওয়া যায়। করোনার মতো প্রাণঘাতী ভাইরাস এই সমীকরণ বদলাতে পারে না। টিভিওয়ালা মিডিয়ার শর্ট ফিল্ম দূরে থাকা কাছের মানুষ-ও এমন একটি গল্প বলে।

আরো পড়ুনঃ ৪৮ দিন পর খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ পেলেন ফখরু

ইউটিউবে বন্যার গান শুনে ১৪ বছর পরে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে দীপ্ত। একসময়ে শান্তিনিকেতনের সোনাঝুরিতে বসে প্রেমের দিন কাটিয়েছিলেন। কিন্তু তার পরে কোনও এক ঘটনায় আলাদা হয়ে যায় দুজনের রাস্তা। দীপ্ত এখন নামকরা চিকিৎসক। আর বন্যা একাধারে সংবাদমাধ্যমের সঞ্চালিকা আর গায়িকা। যদিও দীপ্তর কাছে গায়িকা বন্যাই সেরা।

দূরে চলে যাওয়া এই মানুষ দুটো আবার কথা বলা শুরু করে লকডাউনে। প্রথমে চিঠি। তার পরে স্কাইপ কলিং। বন্য়ার চরিত্রে দেখা অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী রফিয়াত রশিদ মিথিলা। আর দীপ্তের ভূমিকায় বিক্রম চট্টোপাধ্যায়। ছবিতে মিথিলার গলায় গাওয়া দুটি রবীন্দ্রসঙ্গীতও রয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এর সাথে জীবন এবং জীবিকার দ্বন্দ্ব

টিভিওয়ালা মিডিয়ার কর্ণধার অমিত গঙ্গোপাধ্যায়ের উদ্যোগে তৈরি এই ছবির পরিচালনা করেছেন শাহরিয়ার পলক। গল্পটি লিখেছেন অভ্র চক্রবর্তী। টিভিওয়ালা মিডিয়ার ফেসবুক পেজে রয়েছে এই স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবিটি।

Facebook Comments